ঢাকা ০৫:২৫ অপরাহ্ন, সোমবার, ১৫ এপ্রিল ২০২৪, ২ বৈশাখ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

বিশ্বকাপে টানা দ্বিতীয় হার বাংলাদেশের

  • ডেস্ক রিপোর্ট
  • আপডেট সময় : ০১:০৯:১৬ পূর্বাহ্ন, শনিবার, ১৪ অক্টোবর ২০২৩
  • ১০৩ খবরটি দেখা হয়েছে

চলমান ওয়ানডে বিশ্বকাপে টানা দ্বিতীয় হারের লজ্জা পেল বাংলাদেশ ক্রিকেট দল । আজ নিজেদের তৃতীয় ম্যাচে নিউজিল্যান্ডের কাছে ৮ উইকেটে হেরেছে বাংলাদেশ। আগের ম্যাচে ইংল্যান্ডের কাছে ১৩৭ রানের বড় ব্যবধানে হেরেছিলো টাইগাররা। প্রথম ম্যাচে আফগানিস্তানের বিপক্ষে ৬ উইকেটের জয়ে বিশ্বকাপ শুরু করলেও, এখন হারের বৃত্তে ঘুরপাক খাচ্ছে সাকিবের দল। টানা তিন ম্যাচ জিতে ৬ পয়েন্ট নিয়ে টেবিলের শীর্ষে উঠলো নিউজিল্যান্ড।
অভিজ্ঞ ব্যাটার মুশফিকুর রহিমের ৬৬, মাহমুদুল্লাহ রিয়াদের অপরাজিত ৪১ ও অধিনায়ক সাকিব আল হাসানের ৪০ রানের উপর ভর করে প্রথমে ব্যাট করে ৫০ ওভারে ৯ উইকেটে ২৪৫ রানের লড়াকু সংগ্রহ পায় বাংলাদেশ। জবাবে ড্যারিল মিচেলের অনবদ্য ৮৯ ও অধিনায়ক কেন উইলিয়ামসনের ৭৮ রানের সুবাদে ৪৩ বল বাকী রেখে জয় নিয়ে মাঠ ছাড়ে নিউজিল্যান্ড।
চেন্নাইয়ে এমএ চিদাম্বারাম স্টেডিয়ামে টস জিতে বাংলাদেশকে প্রথমে ব্যাটিংয়ের আমন্ত্রন জানান নিউজিল্যান্ডের অধিনায়ক কেন উইলিয়ামসন। একটি করে পরিবর্তন এনে একাদশ সাজায় বাংলাদেশ ও নিউজিল্যান্ড। মাহেদি হাসানের জায়গায় বাংলাদেশ একাদশে ফিরেন মাহমুদুল্লাহ রিয়াদ। আর উইল ইয়ংয়ের পরিবর্তে দীর্ঘদিন পর আন্তর্জাতিক ম্যাচ খেলতে নামেন নিউজিল্যান্ডের উইলিয়ামসন।
ইনিংসের প্রথম বলেই বড়সড় ধাক্কা খায় বাংলাদেশ। নিউজিল্যান্ডের পেসার ট্রেন্ট বোল্টের লেগ সাইডের ডেলিভারিতে ছক্কার আশায় ফ্লিক শটে ডিপ ফাইন লেগে ম্যাট হেনরির দারুন ক্যাচে বিদায় নেন ওপেনার লিটন দাস। এই নিয়ে ওয়ানডেতে ১২বার ও পাঁচবার প্রথম বলে শূণ্যতে আউট হলেন লিটন। বিশ^কাপের মঞ্চে ষষ্ঠ ও দ্বিতীয় বাংলাদেশি হিসেবে প্রথম বলেই আউট হবার লজ্জার রেকর্ডে নাম লিখিয়েছেন লিটন।
লিটনের বিদায়ে তিন নম্বরে মাঠে নামেন মেহেদি হাসান মিরাজ। আরেক ওপেনার তানজিদ হাসানকে সাথে দলের রানের চাকা সচল করেন মিরাজ। এতে প্রথম বলে উইকেট হারানোর ধাক্কা কাটিয়ে ৭ ওভারে ৩৮ রান পেয়ে যায় বাংলাদেশ।
অষ্টম ওভারে তানজিদকে শিকার করে জুটি ভাঙ্গেন পেসার লুকি ফার্গুসন। স্কয়ার লেগে ডেভন কনওয়েকে ক্যাচ দিয়ে থামেন ৪টি চারে ১৬ রান করা তানজিদ। ৮ ম্যাচের ওয়ানডে ক্যারিয়ারে দ্বিতীয়বারের মত সর্বোচ্চ ১৬ রান করলেন তানজিদ। মিরাজের সাথে ৪৮ বলে ৪০ রান যোগ করেন তরুণ এ ব্যাটার।
তানজিদের মত ৪টি বাউন্ডারিতে ভালোভাবে ইনিংস শুরু করেও বেশি দূর যেতে পারেনি মিরাজ। ১২তম ওভারে ফার্গুসনের শর্ট বলে ঠিকঠাক পুল শট খেলতে না পারায় ডিপ ফাইন লেগে হেনরিকে ক্যাচ দেন ৪৬ বলে ৩০ রান করা মিরাজ। পরের ওভারে প্রথমবারের মত আক্রমনে এসেই শান্তকে তুলে নেন নিউজিল্যান্ডের অকেশনাল স্পিনার গ্লেন ফিলিপস। ১টি চারে ৭ রান করেন শান্ত। ৫৬ রানে ৪ উইকেট হারিয়ে চাপে পড়ে বাংলাদেশ। ১৯৯৯ বিশ^কাপে নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে ৩৮ রানে ৪ উইকেট হারিয়েছিলো টাইগাররা। সেটিই সবচেয়ে নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে কম রানে ৪ উইকেট হারানোর রেকর্ড বাংলাদেশের।
চাপে পড়া বাংলাদেশকে লড়াইয়ে ফেরাতে জুটি বাঁধেন অধিনায়ক সাকিব আল হাসান ও মুশফিকুর রহিম। উইকেটে দ্রুত সেট হয়ে ২১তম ওভারে বাংলাদেশের রান ১শতে নেন তারা। তিন অংকে পা দেয়ার পর টাইগারদের রান তোলার গতি কমলেও, ২৮তম ওভারে ওয়ানডেতে ৪৮তম হাফ-সেঞ্চুরি করেন মুশি। বিশ^কাপে নবম অর্ধশতক করতে ৫২ বল খেলেন তিনি।
মুশফিকের হাফ-সেঞ্চুরির পর মারমুখী হয়ে উঠেন সাবধানে খেলতে থাকা সাকিব। স্পিনার রাচিন রবীন্দ্রর করা ২৯তম ওভারে ১টি করে চার-ছক্কা মারেন তিনি। ৩০তম ওভারের চতুর্থ বলে আরও ১টি ছক্কা হাঁকান সাকিব। ফার্গুসনের পরের বলে আবারও ছক্কা মারতে গিয়ে আকাশে বল তুলে দিলে উইকেটরক্ষ টম লাথামের হাতে ক্যাচ দিয়ে প্যাভিলিয়নের পথ ধরেন সাকিব। ৩িটি চার ও ২টি ছক্কায় ৪০ রান করেন টাইগার অধিনায়ক। এই ইনিংস খেলার পথে বিশ^কাপে সর্বোচ্চ রান সংগ্রহকারীর তালিকায় সনাথ জয়সুরিয়া, বিরাট কোহলি ও ক্রিস গেইলকে টপকে ১২০১ রান নিয়ে ষষ্ঠস্থানে উঠেছেন সাকিব।
পঞ্চম উইকেটে মুশফিকের সাথে ১০৮ বলে ৯৬ রান যোগ করেন সাকিব। বিশ^কাপে যৌথভাবে দ্বিতীয় সর্বোচ্চ ৮বার হাফ-সেঞ্চুরির জুটি গড়লেন সাকিব-মুশফিক। এছাড়াও জুটিতে রানের দিক দিয়ে বিশ^কাপে ১৯ ইনিংসে ৯৭২ রান নিয়ে দ্বিতীয়স্থানে উঠলেন তারা। ২০ ইনিংসে ১২২০ রান নিয়ে সবার উপরে অস্ট্রেলিয়ার এডাম গিলক্রিস্ট ও ম্যাথু হেইডেন।
সাকিব ফেরার পর মুশফিকের বিদায় নিশ্চিত করেন হেনরি। তার নিচু হওয়া বলে বোল্ড হবার আগে ৬টি চার ও ২টি ছক্কায় ৭৫ বলে দলের পক্ষে সর্বোচ্চ ৬৬ রান করেন মুশফিক।
মুশফিকের আউটের পর তাওহিদ হৃদয়কে হারিয়ে আবারও চাপে পড়ে বাংলাদেশ। বোল্টের ডেলিভারিতে এক্সট্রা কাভারে স্যান্টনারকে ক্যাচ দিয়ে ১৩ রানে ফিরেন হৃদয়। এই উইকেট নিয়ে নিউজিল্যান্ডের ষষ্ঠ বোলার হিসেবে ওয়ানডেতে ১০৭তম ম্যাচে ২শ শিকার পূর্ণ করেন বোল্ট।
হৃদয়ের আউটে ক্রিজে এসে ২টি ছক্কায় ১৯ বলে ১৭ রান করে আউট হন তাসকিন আহমেদ। মুস্তাফিজুর রহমান ৪ রানে আউট হলে, ৪৮তম ওভারের শেষ বলে ২২৫ রানে নবম উইকেট হারায় বাংলাদেশ। তখনও ক্রিজে টিকে ছিলেন আট নম্বরে নামা মাহমুদুল্লাহ রিয়াদ।
৪৯তম ওভারে বোল্টকে ও শেষ ওভারে মিচেলকে ১টি করে ছক্কা মেরে বাংলাদেশকে লড়াই করার মত পুঁিজ এনে দেন মাহমুদুল্লাহ। ৫০ ওভারে ৯ উইকেটে ২৪৫ রানের সংগ্রহ পায় বাংলাদেশ। তাসকিন-মুস্তাফিজ ও শরিফুল ইসলামের সাথে তিন উইকেটে ৭৪ বল মোকাবেলা করে ৬৫ রান যোগ করেন মাহমুদুল্লাহ। ২টি করে চার-ছক্কায় ৪৯ বলে ৪১ রানে অপরাজিত থাকেন অভিজ্ঞ ব্যাটার। ২ রানে অপরাজিত থাকেন শরিফুল ইসলাম।
নিউজিল্যান্ডের ফার্গুসন ৪৯ রানে ৩টি, বোল্ট ৪৫ ও হেনরি ৫৮ রানে ২টি করে এবং স্যান্টনার-ফিলিপস ১টি করে উইকেট নেন।
জয়ের জন্য ২৪৬ রানের টার্গেট দিয়ে নিউজিল্যান্ডকে শুরুতেই চেপে ধরে বাংলাদেশের বোলাররা। তৃতীয় ওভারের শুরুতেই মুস্তাফিজের বলে দু’টি চার মারা রবীন্দ্র(৯)চতুর্থ ডেলিভারিতে উইকেটের পেছনে ক্যাচ দিয়ে বিদায় নেন।
রবীন্দ্র ফেরার পর ২৬ বলে কোন চার-ছক্কা পায়নি নিউজিল্যান্ডের ব্যাটাররা। এরমধ্যে মুস্তাফিজের করা সপ্তম ওভারের দ্বিতীয় বলে কনওয়ের ক্যাচ ফেলেন মিরাজ। তখন ৪ রানে ছিলেন কনওয়ে।

পাওয়ার প্লের শেষ দিকে রানের গতি বাড়িয়ে ১০ ওভারে নিউজিল্যান্ডের স্কোর ১ উইকেট ৩৭-এ নেন কনওয়ে ও উইলিয়ামসন।
১৯তম ওভারে সাকিবের বলে তাসকিনের হাতে জীবন পান ২৭ রানে থাকা উইলিয়ামসন। একবার করে জীবন পেয়ে দ্বিতীয় উইকেটে ১০৫ বলে ৮০ রান যোগ করেন কনওয়ে ও উইলিয়ামসন। ৩টি চারে ৪৫ রান করা কনওয়েকে লেগ বিফোর আউট করে বাংলাদেশকে ব্রেক থ্রু এনে দেন সাকিব।
দলীয় ৯২ রানে কনওয়ে ফেরার পর নিউজিল্যান্ডের জয়ের পথ তৈরি করেন উইলিয়ামসন ও ড্যারিল মিচেল। ২৯তম ওভারে ওয়ানডেতে ৪৩তম হাফ-সেঞ্চুরি করেন মার্চের পর প্রতিযোগিতামূলক ক্রিকেটে ফেরা উইলিয়ামসন। ৩৭তম ওভারে ওয়ানডে ক্যারিয়ারে চতুর্থ অর্ধশতকের দেখা পান মিচেল।
উইলিয়ামসন-মিচেলের জোড়া হাফ-সেঞ্চুরিতে ৩৮ ওভারে ২ উইকেটে ১৯৮ রান পেয়ে যায় নিউজিল্যান্ড। ৩৮তম ওভারে শান্তর থ্রোতে আঙ্গুলে ব্যথা পেলে পরের ওভারে আহত অবসর নেন উইলিয়ামসন। মিচেলের সাথে ১০৯ বলে অবিচ্ছিন্ন ১০৮ রান যোগ করেন নিউজিল্যান্ড অধিনায়ক। ৮টি চার ও ১টি ছক্কায় ১০৭ বলে ৭৮ রান করেন উইলিয়ামসন।
এরপর মিচেল ও ফিলিপস ১৬ বলে ২৭ রানের অবিচ্ছিন্ন জুটি গড়ে ৪৩তম ওভারেই নিউজিল্যান্ডের জয় নিশ্চিত করেন। ৬টি চার ও ৪টি ছক্কায় ৬৭ বলে ৮৯ রানে অপরাজিত থাকেন মিচেল। ১৬ রানে অপরাজিত থাকেন ফিলিপস। বাংলাদেশের মুস্তাফিজুর-সাকিব ১টি করে উইকেট নেন।
আগামী ১৯ অক্টোবর পুনেতে নিজেদের চতুর্থ ম্যাচে স্বাগতিক ভারতের মুখোমুখি হবে বাংলাদেশ।
স্কোর কার্ড : (টস-নিউজিল্যান্ড)
বাংলাদেশ ইনিংস :
লিটন ক হেনরি ব বোল্ট ০
তানজিদ ক কনওয়ে ব ফার্গুসন ১৬
মিরাজ ক হেনরি ব ফার্গুসন ৩০
শান্ত ক কনওয়ে ব ফিলিপস ৭
সাকিব ক লাথাম ব ফার্গুসন ৪০
মুশফিকুর ব হেনরি ৬৬
হৃদয় ক স্যান্টনার ব বোল্ট ১৩
মাহমুদুল্লাহ অপরাজিত ৪১
তাসকিন ক মিচেল ব স্যান্টনার ১৭
মুস্তাফিজুর ক লাথাম ব হেনরি ৪
শরিফুল অপরাজিত ২
অতিরিক্ত (লে বা-১, নো-৪, ও-৪) ৯
মোট (৯ উইকেট, ৫০ ওভার) ২৪৫
উইকেট পতন : ১-০ (লিটন), ২-৪০ (তানজিদ), ৩-৫৬ (মিরাজ), ৪-৫৬ (শান্ত), ৫-১৫২ (সাকিব), ৬-১৭৫ (মুশফিকুর), ৭-১৮০ (হৃদয়), ৮-২১৪ (তাসকিন), ৯-২২৫ (মুস্তাফিজুর)।
নিউজিল্যান্ড বোলিং :
বোল্ট : ১০-০-৪৫-২ (ও-২),
হেনরি : ১০-০-৫৮-২ (নো-১),
ফার্গুসন : ১০-০-৪৯-৩ (ও-২, নো-২),
স্যান্টনার : ১০-১-৩১-১,
ফিলিপস : ২-০-১৩-১ (নো-১),
রবীন্দ্র : ৭-০-৩৭-০,
মিচেল : ১-০-১১-০।
নিউজিল্যান্ড ইনিংস :
কনওয়ে এলবিডব্লু ব সাকিব ৪৫
রবীন্দ্র ক মুশফিকুর ব মুস্তাফিজুর ৯
উইলিয়ামসন আহত অবসর ৭৮
মিচেল অপরাজিত ৮৯
ফিলিপস অপরাজিত ১৬
অতিরিক্ত (লে বা-১, ও-১০) ১১
মোট (২ উইকেট, ৪২.৫ ওভার) ২৪৮
উইকেট পতন : ১-১২ (রবীন্দ্র), ২-৯২ (কনওয়ে), ২-২০০ (উইলিয়ামসন, আহত অবসর)
বাংলাদেশ বোলিং :
মুস্তাফিজুর : ৮-০-৩৬-১ (ও-৩),
শরিফুল : ৭.৫-১-৪৩-০ (ও-৩),
তাসকিন : ৮-০-৫৬-০ (ও-৩),
সাকিব : ১০-০-৫৪-১,
মিরাজ : ৯-০-৫৮-০ (ও-১)।
ফল : নিউজিল্যান্ড ৮ উইকেটে জয়ী।
ম্যাচ সেরা: লুকি ফার্গুসন(নিউজিল্যান্ড)।

দাকোপের বাজুয়ায় মাদক ব্যবসায়ীদের বিরুদ্ধে মানববন্ধন

বিশ্বকাপে টানা দ্বিতীয় হার বাংলাদেশের

আপডেট সময় : ০১:০৯:১৬ পূর্বাহ্ন, শনিবার, ১৪ অক্টোবর ২০২৩

চলমান ওয়ানডে বিশ্বকাপে টানা দ্বিতীয় হারের লজ্জা পেল বাংলাদেশ ক্রিকেট দল । আজ নিজেদের তৃতীয় ম্যাচে নিউজিল্যান্ডের কাছে ৮ উইকেটে হেরেছে বাংলাদেশ। আগের ম্যাচে ইংল্যান্ডের কাছে ১৩৭ রানের বড় ব্যবধানে হেরেছিলো টাইগাররা। প্রথম ম্যাচে আফগানিস্তানের বিপক্ষে ৬ উইকেটের জয়ে বিশ্বকাপ শুরু করলেও, এখন হারের বৃত্তে ঘুরপাক খাচ্ছে সাকিবের দল। টানা তিন ম্যাচ জিতে ৬ পয়েন্ট নিয়ে টেবিলের শীর্ষে উঠলো নিউজিল্যান্ড।
অভিজ্ঞ ব্যাটার মুশফিকুর রহিমের ৬৬, মাহমুদুল্লাহ রিয়াদের অপরাজিত ৪১ ও অধিনায়ক সাকিব আল হাসানের ৪০ রানের উপর ভর করে প্রথমে ব্যাট করে ৫০ ওভারে ৯ উইকেটে ২৪৫ রানের লড়াকু সংগ্রহ পায় বাংলাদেশ। জবাবে ড্যারিল মিচেলের অনবদ্য ৮৯ ও অধিনায়ক কেন উইলিয়ামসনের ৭৮ রানের সুবাদে ৪৩ বল বাকী রেখে জয় নিয়ে মাঠ ছাড়ে নিউজিল্যান্ড।
চেন্নাইয়ে এমএ চিদাম্বারাম স্টেডিয়ামে টস জিতে বাংলাদেশকে প্রথমে ব্যাটিংয়ের আমন্ত্রন জানান নিউজিল্যান্ডের অধিনায়ক কেন উইলিয়ামসন। একটি করে পরিবর্তন এনে একাদশ সাজায় বাংলাদেশ ও নিউজিল্যান্ড। মাহেদি হাসানের জায়গায় বাংলাদেশ একাদশে ফিরেন মাহমুদুল্লাহ রিয়াদ। আর উইল ইয়ংয়ের পরিবর্তে দীর্ঘদিন পর আন্তর্জাতিক ম্যাচ খেলতে নামেন নিউজিল্যান্ডের উইলিয়ামসন।
ইনিংসের প্রথম বলেই বড়সড় ধাক্কা খায় বাংলাদেশ। নিউজিল্যান্ডের পেসার ট্রেন্ট বোল্টের লেগ সাইডের ডেলিভারিতে ছক্কার আশায় ফ্লিক শটে ডিপ ফাইন লেগে ম্যাট হেনরির দারুন ক্যাচে বিদায় নেন ওপেনার লিটন দাস। এই নিয়ে ওয়ানডেতে ১২বার ও পাঁচবার প্রথম বলে শূণ্যতে আউট হলেন লিটন। বিশ^কাপের মঞ্চে ষষ্ঠ ও দ্বিতীয় বাংলাদেশি হিসেবে প্রথম বলেই আউট হবার লজ্জার রেকর্ডে নাম লিখিয়েছেন লিটন।
লিটনের বিদায়ে তিন নম্বরে মাঠে নামেন মেহেদি হাসান মিরাজ। আরেক ওপেনার তানজিদ হাসানকে সাথে দলের রানের চাকা সচল করেন মিরাজ। এতে প্রথম বলে উইকেট হারানোর ধাক্কা কাটিয়ে ৭ ওভারে ৩৮ রান পেয়ে যায় বাংলাদেশ।
অষ্টম ওভারে তানজিদকে শিকার করে জুটি ভাঙ্গেন পেসার লুকি ফার্গুসন। স্কয়ার লেগে ডেভন কনওয়েকে ক্যাচ দিয়ে থামেন ৪টি চারে ১৬ রান করা তানজিদ। ৮ ম্যাচের ওয়ানডে ক্যারিয়ারে দ্বিতীয়বারের মত সর্বোচ্চ ১৬ রান করলেন তানজিদ। মিরাজের সাথে ৪৮ বলে ৪০ রান যোগ করেন তরুণ এ ব্যাটার।
তানজিদের মত ৪টি বাউন্ডারিতে ভালোভাবে ইনিংস শুরু করেও বেশি দূর যেতে পারেনি মিরাজ। ১২তম ওভারে ফার্গুসনের শর্ট বলে ঠিকঠাক পুল শট খেলতে না পারায় ডিপ ফাইন লেগে হেনরিকে ক্যাচ দেন ৪৬ বলে ৩০ রান করা মিরাজ। পরের ওভারে প্রথমবারের মত আক্রমনে এসেই শান্তকে তুলে নেন নিউজিল্যান্ডের অকেশনাল স্পিনার গ্লেন ফিলিপস। ১টি চারে ৭ রান করেন শান্ত। ৫৬ রানে ৪ উইকেট হারিয়ে চাপে পড়ে বাংলাদেশ। ১৯৯৯ বিশ^কাপে নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে ৩৮ রানে ৪ উইকেট হারিয়েছিলো টাইগাররা। সেটিই সবচেয়ে নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে কম রানে ৪ উইকেট হারানোর রেকর্ড বাংলাদেশের।
চাপে পড়া বাংলাদেশকে লড়াইয়ে ফেরাতে জুটি বাঁধেন অধিনায়ক সাকিব আল হাসান ও মুশফিকুর রহিম। উইকেটে দ্রুত সেট হয়ে ২১তম ওভারে বাংলাদেশের রান ১শতে নেন তারা। তিন অংকে পা দেয়ার পর টাইগারদের রান তোলার গতি কমলেও, ২৮তম ওভারে ওয়ানডেতে ৪৮তম হাফ-সেঞ্চুরি করেন মুশি। বিশ^কাপে নবম অর্ধশতক করতে ৫২ বল খেলেন তিনি।
মুশফিকের হাফ-সেঞ্চুরির পর মারমুখী হয়ে উঠেন সাবধানে খেলতে থাকা সাকিব। স্পিনার রাচিন রবীন্দ্রর করা ২৯তম ওভারে ১টি করে চার-ছক্কা মারেন তিনি। ৩০তম ওভারের চতুর্থ বলে আরও ১টি ছক্কা হাঁকান সাকিব। ফার্গুসনের পরের বলে আবারও ছক্কা মারতে গিয়ে আকাশে বল তুলে দিলে উইকেটরক্ষ টম লাথামের হাতে ক্যাচ দিয়ে প্যাভিলিয়নের পথ ধরেন সাকিব। ৩িটি চার ও ২টি ছক্কায় ৪০ রান করেন টাইগার অধিনায়ক। এই ইনিংস খেলার পথে বিশ^কাপে সর্বোচ্চ রান সংগ্রহকারীর তালিকায় সনাথ জয়সুরিয়া, বিরাট কোহলি ও ক্রিস গেইলকে টপকে ১২০১ রান নিয়ে ষষ্ঠস্থানে উঠেছেন সাকিব।
পঞ্চম উইকেটে মুশফিকের সাথে ১০৮ বলে ৯৬ রান যোগ করেন সাকিব। বিশ^কাপে যৌথভাবে দ্বিতীয় সর্বোচ্চ ৮বার হাফ-সেঞ্চুরির জুটি গড়লেন সাকিব-মুশফিক। এছাড়াও জুটিতে রানের দিক দিয়ে বিশ^কাপে ১৯ ইনিংসে ৯৭২ রান নিয়ে দ্বিতীয়স্থানে উঠলেন তারা। ২০ ইনিংসে ১২২০ রান নিয়ে সবার উপরে অস্ট্রেলিয়ার এডাম গিলক্রিস্ট ও ম্যাথু হেইডেন।
সাকিব ফেরার পর মুশফিকের বিদায় নিশ্চিত করেন হেনরি। তার নিচু হওয়া বলে বোল্ড হবার আগে ৬টি চার ও ২টি ছক্কায় ৭৫ বলে দলের পক্ষে সর্বোচ্চ ৬৬ রান করেন মুশফিক।
মুশফিকের আউটের পর তাওহিদ হৃদয়কে হারিয়ে আবারও চাপে পড়ে বাংলাদেশ। বোল্টের ডেলিভারিতে এক্সট্রা কাভারে স্যান্টনারকে ক্যাচ দিয়ে ১৩ রানে ফিরেন হৃদয়। এই উইকেট নিয়ে নিউজিল্যান্ডের ষষ্ঠ বোলার হিসেবে ওয়ানডেতে ১০৭তম ম্যাচে ২শ শিকার পূর্ণ করেন বোল্ট।
হৃদয়ের আউটে ক্রিজে এসে ২টি ছক্কায় ১৯ বলে ১৭ রান করে আউট হন তাসকিন আহমেদ। মুস্তাফিজুর রহমান ৪ রানে আউট হলে, ৪৮তম ওভারের শেষ বলে ২২৫ রানে নবম উইকেট হারায় বাংলাদেশ। তখনও ক্রিজে টিকে ছিলেন আট নম্বরে নামা মাহমুদুল্লাহ রিয়াদ।
৪৯তম ওভারে বোল্টকে ও শেষ ওভারে মিচেলকে ১টি করে ছক্কা মেরে বাংলাদেশকে লড়াই করার মত পুঁিজ এনে দেন মাহমুদুল্লাহ। ৫০ ওভারে ৯ উইকেটে ২৪৫ রানের সংগ্রহ পায় বাংলাদেশ। তাসকিন-মুস্তাফিজ ও শরিফুল ইসলামের সাথে তিন উইকেটে ৭৪ বল মোকাবেলা করে ৬৫ রান যোগ করেন মাহমুদুল্লাহ। ২টি করে চার-ছক্কায় ৪৯ বলে ৪১ রানে অপরাজিত থাকেন অভিজ্ঞ ব্যাটার। ২ রানে অপরাজিত থাকেন শরিফুল ইসলাম।
নিউজিল্যান্ডের ফার্গুসন ৪৯ রানে ৩টি, বোল্ট ৪৫ ও হেনরি ৫৮ রানে ২টি করে এবং স্যান্টনার-ফিলিপস ১টি করে উইকেট নেন।
জয়ের জন্য ২৪৬ রানের টার্গেট দিয়ে নিউজিল্যান্ডকে শুরুতেই চেপে ধরে বাংলাদেশের বোলাররা। তৃতীয় ওভারের শুরুতেই মুস্তাফিজের বলে দু’টি চার মারা রবীন্দ্র(৯)চতুর্থ ডেলিভারিতে উইকেটের পেছনে ক্যাচ দিয়ে বিদায় নেন।
রবীন্দ্র ফেরার পর ২৬ বলে কোন চার-ছক্কা পায়নি নিউজিল্যান্ডের ব্যাটাররা। এরমধ্যে মুস্তাফিজের করা সপ্তম ওভারের দ্বিতীয় বলে কনওয়ের ক্যাচ ফেলেন মিরাজ। তখন ৪ রানে ছিলেন কনওয়ে।

পাওয়ার প্লের শেষ দিকে রানের গতি বাড়িয়ে ১০ ওভারে নিউজিল্যান্ডের স্কোর ১ উইকেট ৩৭-এ নেন কনওয়ে ও উইলিয়ামসন।
১৯তম ওভারে সাকিবের বলে তাসকিনের হাতে জীবন পান ২৭ রানে থাকা উইলিয়ামসন। একবার করে জীবন পেয়ে দ্বিতীয় উইকেটে ১০৫ বলে ৮০ রান যোগ করেন কনওয়ে ও উইলিয়ামসন। ৩টি চারে ৪৫ রান করা কনওয়েকে লেগ বিফোর আউট করে বাংলাদেশকে ব্রেক থ্রু এনে দেন সাকিব।
দলীয় ৯২ রানে কনওয়ে ফেরার পর নিউজিল্যান্ডের জয়ের পথ তৈরি করেন উইলিয়ামসন ও ড্যারিল মিচেল। ২৯তম ওভারে ওয়ানডেতে ৪৩তম হাফ-সেঞ্চুরি করেন মার্চের পর প্রতিযোগিতামূলক ক্রিকেটে ফেরা উইলিয়ামসন। ৩৭তম ওভারে ওয়ানডে ক্যারিয়ারে চতুর্থ অর্ধশতকের দেখা পান মিচেল।
উইলিয়ামসন-মিচেলের জোড়া হাফ-সেঞ্চুরিতে ৩৮ ওভারে ২ উইকেটে ১৯৮ রান পেয়ে যায় নিউজিল্যান্ড। ৩৮তম ওভারে শান্তর থ্রোতে আঙ্গুলে ব্যথা পেলে পরের ওভারে আহত অবসর নেন উইলিয়ামসন। মিচেলের সাথে ১০৯ বলে অবিচ্ছিন্ন ১০৮ রান যোগ করেন নিউজিল্যান্ড অধিনায়ক। ৮টি চার ও ১টি ছক্কায় ১০৭ বলে ৭৮ রান করেন উইলিয়ামসন।
এরপর মিচেল ও ফিলিপস ১৬ বলে ২৭ রানের অবিচ্ছিন্ন জুটি গড়ে ৪৩তম ওভারেই নিউজিল্যান্ডের জয় নিশ্চিত করেন। ৬টি চার ও ৪টি ছক্কায় ৬৭ বলে ৮৯ রানে অপরাজিত থাকেন মিচেল। ১৬ রানে অপরাজিত থাকেন ফিলিপস। বাংলাদেশের মুস্তাফিজুর-সাকিব ১টি করে উইকেট নেন।
আগামী ১৯ অক্টোবর পুনেতে নিজেদের চতুর্থ ম্যাচে স্বাগতিক ভারতের মুখোমুখি হবে বাংলাদেশ।
স্কোর কার্ড : (টস-নিউজিল্যান্ড)
বাংলাদেশ ইনিংস :
লিটন ক হেনরি ব বোল্ট ০
তানজিদ ক কনওয়ে ব ফার্গুসন ১৬
মিরাজ ক হেনরি ব ফার্গুসন ৩০
শান্ত ক কনওয়ে ব ফিলিপস ৭
সাকিব ক লাথাম ব ফার্গুসন ৪০
মুশফিকুর ব হেনরি ৬৬
হৃদয় ক স্যান্টনার ব বোল্ট ১৩
মাহমুদুল্লাহ অপরাজিত ৪১
তাসকিন ক মিচেল ব স্যান্টনার ১৭
মুস্তাফিজুর ক লাথাম ব হেনরি ৪
শরিফুল অপরাজিত ২
অতিরিক্ত (লে বা-১, নো-৪, ও-৪) ৯
মোট (৯ উইকেট, ৫০ ওভার) ২৪৫
উইকেট পতন : ১-০ (লিটন), ২-৪০ (তানজিদ), ৩-৫৬ (মিরাজ), ৪-৫৬ (শান্ত), ৫-১৫২ (সাকিব), ৬-১৭৫ (মুশফিকুর), ৭-১৮০ (হৃদয়), ৮-২১৪ (তাসকিন), ৯-২২৫ (মুস্তাফিজুর)।
নিউজিল্যান্ড বোলিং :
বোল্ট : ১০-০-৪৫-২ (ও-২),
হেনরি : ১০-০-৫৮-২ (নো-১),
ফার্গুসন : ১০-০-৪৯-৩ (ও-২, নো-২),
স্যান্টনার : ১০-১-৩১-১,
ফিলিপস : ২-০-১৩-১ (নো-১),
রবীন্দ্র : ৭-০-৩৭-০,
মিচেল : ১-০-১১-০।
নিউজিল্যান্ড ইনিংস :
কনওয়ে এলবিডব্লু ব সাকিব ৪৫
রবীন্দ্র ক মুশফিকুর ব মুস্তাফিজুর ৯
উইলিয়ামসন আহত অবসর ৭৮
মিচেল অপরাজিত ৮৯
ফিলিপস অপরাজিত ১৬
অতিরিক্ত (লে বা-১, ও-১০) ১১
মোট (২ উইকেট, ৪২.৫ ওভার) ২৪৮
উইকেট পতন : ১-১২ (রবীন্দ্র), ২-৯২ (কনওয়ে), ২-২০০ (উইলিয়ামসন, আহত অবসর)
বাংলাদেশ বোলিং :
মুস্তাফিজুর : ৮-০-৩৬-১ (ও-৩),
শরিফুল : ৭.৫-১-৪৩-০ (ও-৩),
তাসকিন : ৮-০-৫৬-০ (ও-৩),
সাকিব : ১০-০-৫৪-১,
মিরাজ : ৯-০-৫৮-০ (ও-১)।
ফল : নিউজিল্যান্ড ৮ উইকেটে জয়ী।
ম্যাচ সেরা: লুকি ফার্গুসন(নিউজিল্যান্ড)।