ঢাকা ০৩:২৬ পূর্বাহ্ন, রবিবার, ১৪ জুলাই ২০২৪, ২৯ আষাঢ় ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

বরিশালের ভাবমূর্তি উজ্জ্বল থেকে উজ্জ্বলতর করতে কাজ করে যাচ্ছে সরকার

  • ডেস্ক রিপোর্ট
  • আপডেট সময় : ০৫:৫১:৪৩ অপরাহ্ন, সোমবার, ৬ নভেম্বর ২০২৩
  • ১০৭ খবরটি দেখা হয়েছে

বিগত ১৫ বছরে স্মার্ট বাংলাদেশ রূপকল্প বাস্তবায়নে বর্তমান সরকার বর্হিবিশ্বে বরিশালের ভাবমূর্তি উজ্জ্বল থেকে উজ্জ্বলতর করতে কাজ করে যাচ্ছে। তাই বর্তমান সরকারের দিক নির্দেশনায় ধাপে ধাপে দক্ষিণাঞ্চলের দুঃখী মানুষের ভাগ্যোন্নয়নে নিরলস কাজ করেছে বরিশাল গণপূর্ত বিভাগ।
বরিশাল জেলা গণপূর্ত অধিদপ্তরের সংশ্লিষ্ট সূত্র জানায়, সরকারের সুদূরপ্রসারী পরিকল্পনার সুফল জনগণ পেতে শুরু করেছে মাত্র। বরিশাল অঞ্চলে চলছে পরিকল্পিত উন্নয়ন। বদলে যাচ্ছে বরিশারের অর্থনৈতিক চিত্র। বর্তমান সরকারের বেশ কয়েকটি অর্থনৈতিক গুরুত্বপূর্ণ স্থাপনা নির্মিত হচ্ছে বরিশালে। এসব উন্নয়ন প্রকল্প বাস্তবায়ন হলে বদলে যাবে গোটা বরিশাল অঞ্চলের অর্থনৈতিক চিত্র। বরিশালে আইসিটি পার্ক, অর্থনৈতিক জোন, বঙ্গবন্ধু নভোথিয়েটার, নগরীর নথুল্লাবাদ কেন্দ্রীয় বাস টার্মিনালের অদূরে ও বরিশাল মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিক শিক্ষা বোর্ডের পাশে ২৭২ কোটি টাকা ব্যয়ে স্থাপিত হবে আইসিটি পার্ক । সড়ক ও জনপদ বিভাগের ৫ একর জমি নির্ধারণ করা হয়েছে পার্ক নির্মাণের জন্য। গড়ে উঠবে তথ্য প্রযুক্তি নির্ভর বিভিন্ন প্রতিষ্ঠান। ধারনা করা হচ্ছে এ প্রকল্প বাস্তবায়ন হলে প্রায় ২৩ হাজার বেকার যুবক-যুবতী কর্মসংস্থানে সুযোগ পাবে এখানে।
এছাড়া জেলার আগৈলঝাড়া উপজেলায় অর্থনৈতিক অঞ্চল স্থাপনের কাজও এগিয়ে চলছে। ইতোমধ্যে ৩শ’ একর জমি অধিগ্রহণ সম্পন্ন হয়েছে। পদ্মা সেতুকে কেন্দ্র করে এখানকার অর্থনৈতিক জোন বরিশালের অর্থনৈতিক অবস্থার ব্যাপক পরিবর্তন ঘটেছে। উৎপাদিত পণ্য দেশের চাহিদা মিটিয়ে বিদেশে রপ্তানিরও সম্ভাবনা রয়েছে প্রচুর।
সংশ্লিষ্ট সূত্র আরো জানান, জেলার সদর উপজেলার দক্ষিণ চরআইচা মৌজায় ৪১২ কোটি টাকা ব্যয়ে  বঙ্গবন্ধু নভোথিয়েটার প্রকল্প স্থাপন করা হচ্ছে। বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি মন্ত্রণালয়ের অধীনে ও জিওবি-এর অর্থায়নে প্রকল্পটি বাস্তবায়নকারী সংস্থা “বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান নভোথিয়েটার” ঢাকা। পগণূর্ত অধিদপ্তরের কাজ বাস্তবায়নে রয়েছে বরিশাল বিভাগীয় অধিদপ্তর। তাই অচিরেই বরিশাল অঞ্চল হয়ে উঠবে উন্নয়নের রোল মডেল হিসেবে। এরইমধ্যে, বরিশাল জেলা গণপূর্ত অধিদপ্তর উল্লেখ্যযোগ্য যে সব প্রকল্প শতভাগ সম্পন্ন করেছে তার মধ্যে রয়েছে। যথাক্রমে, স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের আওতাধীন জননিরাপত্তা বিভাগের উদ্যোগে নগরীর রূপাতলী এলাকায় প্রায় ১৬ কোটি ৩৪ লাখ টাকা ব্যয়ে নির্মাণ করা হয়েছে “বরিশাল মেট্রোপলিটন পুলিশ লাইন্স”,  নগরীর বান্দরোড পানি উন্নয়ন বোর্ড সংলগ্ন প্রায় ২৩ কোটি টাকা ব্যয়ে নির্মাণ করা হয়েছে বরিশাল মেট্রোপলিটন পুলিশ কার্যালয়, জেলার বাকেরগঞ্জ উপজেলার চামটা নিয়ামতি এলাকায় প্রায় ৩ কোটি ৯ লাখ ৫০ হাজার টাকা ব্যয়ে নির্মাণ করা হয়েছে নৌ-পুলিশ ফাঁড়ি, প্রায় ১ কোটি ৬৬ লাখ টাকা ব্যয়ে জেলা ও ব্যাটালিয়ন সদরের আনসার ও ভিডিপি’র ব্যারাক সমূহের ভৌত সুবিধাদি সম্প্রসারণ প্রকল্প, প্রায় ৩ কোটি ৬১ লাখ টাকা ব্যয়ে নির্মাণ করা হয়েছে জেলার মুলাদী উপজেলা ফায়ার সার্ভিস ও সিভিল ডিফেন্স স্টেটেশন। পাশাপাশি প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয়ের অধীনে ও জিওবি-এর অর্থায়নে প্রায় ১ কোটি ৪৯ লাখ টাকা ব্যয়ে নদী বন্দর ১ম শ্রেণী আবহাওয়া পর্যাবেক্ষনাগার শক্তিশালী করন শীর্ষক জেলার হিজলা থানাধীন আবহাওয়া অফিস ভবন নির্মাণ প্রকল্প সম্পন্ন করা হয়েছে। ভূমি মন্ত্রণাল য়ের অধীনে উপজেলা ও ইউনিয়ন ভূমি অফিস নির্মান শীর্ষক প্রকল্পের আওতায় জেলায় ৯টি অফিস ভবন নির্মাণ, কৃষি মন্ত্রণালয়ের অধীনে প্রায় ১ কোটি ২৪ লাখ টাকা ব্যয়ে জেলা কৃষি তথ্য সার্ভিস আধুনিকায়ন ও ডিজিটাল কৃষি তথ্য ও যোগাযোগ শক্তিশালী করণ প্রকল্প ও প্রায় ৬ কোটি ৩৮ লাখ টাকা ব্যয়ে উপজেলা পর্যায়ে প্রযুক্তি হস্তান্তরের জন্য কৃষক প্রশিক্ষন কেন্দ্র নির্মাণ করা হয়েছে। এছাড়াও সমাজকল্যাণ মন্ত্রনালয়ের অধীনে প্রায় ১৪ কোটি ৪০ লাখ টাকা ব্যয়ে নগরীর রূপাতলী এলাকায় নির্মাণ করা হয়েছে বরিশাল জেলা সমাজসেবা কমপ্লেক্স ও প্রায় ৫ কোটি ৬৬ লাখ টাকা ব্যয়ে “নিয়ন্ত্রিত প্রবেশ ও প্রযুক্তিগত মনিটরিং ব্যবস্থাপনার মাধ্যমে ৮৫টি সরকারী শিশু পরিবারের সুরক্ষা ও নিবিড় তত্ত্বাবধান” শীর্ষক প্রকল্প। এছাড়া রয়েছে, সংস্কৃতি বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের অধীনে প্রায় ২৯ কোটি ৭০ লাখ টাকা ব্যয়ে নির্মাণ করা হয়েছে বরিশাল বিভাগীয় ও জেলা শিল্পকলা একাডেমি ভবন।
অপরদিকে, সারাদেশে ন্যায় বরিশাল জেলায়ও সর্বমোট প্রায় ১১টি মডেল মসজিদ ও ইসলামিক সাংস্কৃতিক কেন্দ্র নির্মাণ প্রকল্পের কাজ চলমান রয়েছে। এরইমধ্যে ২টি মডেল মসজিদ ও ইসলামিক সাংস্কৃতিক কেন্দ্রের উদ্বোধন করা হয়েছে। বাকি ৯টি মডেল মসজিদ নির্মাণ কাজ ২০২৪ সালের জুনের মধ্যে শেষ হওয়ার কথা রয়েছে।
এ বিষয়ে বরিশাল জেলা গণপূর্ত বিভাগের নির্বাহী প্রকৌশলী মোঃ ফয়সাল আলম বলেন, বিগত বছরগুলোতে বেশ কিছু গুরুত্বপূর্ণ প্রকল্প জেলা গণপূর্ত বিভাগ বাস্তবায়ন করেছে। প্রাতিষ্ঠানিক দক্ষতা বৃদ্ধি, সম্পদের যথাযথ ব্যবহার নিশ্চিতকরনের মাধ্যমে “স্মার্ট বাংলাদেশ” গঠনের রূপকল্পে গণপূর্ত অধিদপ্তর বর্তমান সরকারের দিক-র্নিদেশনায় একাধিক কাজ করে যাচ্ছে।
তিনি বলেন, গণপূর্ত বিভাগ বাংলাদেশ নির্মাণ অঙ্গনে একটি পথিকৃত। স্মার্ট বাংলাদেশ রূপকল্প ২০৪১ কে সামনে রেখে সরকারের উন্নয়ন পরিকল্পনার আওতায় উন্নয়নশীল দেশের সকল চ্যালেঞ্জ মোকাবেলা পূর্বক যুগোপযোগী অবকাঠামো নির্মাণসহ প্রাতিষ্ঠানিক ও আবাসিক সুবিধাদি সুনিশ্চিত করাই এ প্রতিষ্ঠানটির মূল ভিশন।
এ প্রসঙ্গে বরিশাল জেলা প্রশাসক শহিদুল ইসলাম’র সাথে আলাপকালে তিনি বলেন, বর্তমান সরকারের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার অবদান ও উন্নয়নে বদলে যাচ্ছে বরিশাল অঞ্চল। তারই ঐকান্তিকতায় বরিশাল আজ উন্নয়নের মহাসড়কে।
তিনি আরো বলেন, তারই হাত ধরে অবহেলিত বরিশাল আজ দেশের অন্যতম নান্দনিক ও সমৃদ্ধ শহর হতে চলেছে। শুধু শহর নয়, বৃহত্তর বরিশাল অঞ্চলে চলছে উন্নয়নের মহাযজ্ঞ।

জনপ্রিয়

বরিশালের ভাবমূর্তি উজ্জ্বল থেকে উজ্জ্বলতর করতে কাজ করে যাচ্ছে সরকার

আপডেট সময় : ০৫:৫১:৪৩ অপরাহ্ন, সোমবার, ৬ নভেম্বর ২০২৩

বিগত ১৫ বছরে স্মার্ট বাংলাদেশ রূপকল্প বাস্তবায়নে বর্তমান সরকার বর্হিবিশ্বে বরিশালের ভাবমূর্তি উজ্জ্বল থেকে উজ্জ্বলতর করতে কাজ করে যাচ্ছে। তাই বর্তমান সরকারের দিক নির্দেশনায় ধাপে ধাপে দক্ষিণাঞ্চলের দুঃখী মানুষের ভাগ্যোন্নয়নে নিরলস কাজ করেছে বরিশাল গণপূর্ত বিভাগ।
বরিশাল জেলা গণপূর্ত অধিদপ্তরের সংশ্লিষ্ট সূত্র জানায়, সরকারের সুদূরপ্রসারী পরিকল্পনার সুফল জনগণ পেতে শুরু করেছে মাত্র। বরিশাল অঞ্চলে চলছে পরিকল্পিত উন্নয়ন। বদলে যাচ্ছে বরিশারের অর্থনৈতিক চিত্র। বর্তমান সরকারের বেশ কয়েকটি অর্থনৈতিক গুরুত্বপূর্ণ স্থাপনা নির্মিত হচ্ছে বরিশালে। এসব উন্নয়ন প্রকল্প বাস্তবায়ন হলে বদলে যাবে গোটা বরিশাল অঞ্চলের অর্থনৈতিক চিত্র। বরিশালে আইসিটি পার্ক, অর্থনৈতিক জোন, বঙ্গবন্ধু নভোথিয়েটার, নগরীর নথুল্লাবাদ কেন্দ্রীয় বাস টার্মিনালের অদূরে ও বরিশাল মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিক শিক্ষা বোর্ডের পাশে ২৭২ কোটি টাকা ব্যয়ে স্থাপিত হবে আইসিটি পার্ক । সড়ক ও জনপদ বিভাগের ৫ একর জমি নির্ধারণ করা হয়েছে পার্ক নির্মাণের জন্য। গড়ে উঠবে তথ্য প্রযুক্তি নির্ভর বিভিন্ন প্রতিষ্ঠান। ধারনা করা হচ্ছে এ প্রকল্প বাস্তবায়ন হলে প্রায় ২৩ হাজার বেকার যুবক-যুবতী কর্মসংস্থানে সুযোগ পাবে এখানে।
এছাড়া জেলার আগৈলঝাড়া উপজেলায় অর্থনৈতিক অঞ্চল স্থাপনের কাজও এগিয়ে চলছে। ইতোমধ্যে ৩শ’ একর জমি অধিগ্রহণ সম্পন্ন হয়েছে। পদ্মা সেতুকে কেন্দ্র করে এখানকার অর্থনৈতিক জোন বরিশালের অর্থনৈতিক অবস্থার ব্যাপক পরিবর্তন ঘটেছে। উৎপাদিত পণ্য দেশের চাহিদা মিটিয়ে বিদেশে রপ্তানিরও সম্ভাবনা রয়েছে প্রচুর।
সংশ্লিষ্ট সূত্র আরো জানান, জেলার সদর উপজেলার দক্ষিণ চরআইচা মৌজায় ৪১২ কোটি টাকা ব্যয়ে  বঙ্গবন্ধু নভোথিয়েটার প্রকল্প স্থাপন করা হচ্ছে। বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি মন্ত্রণালয়ের অধীনে ও জিওবি-এর অর্থায়নে প্রকল্পটি বাস্তবায়নকারী সংস্থা “বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান নভোথিয়েটার” ঢাকা। পগণূর্ত অধিদপ্তরের কাজ বাস্তবায়নে রয়েছে বরিশাল বিভাগীয় অধিদপ্তর। তাই অচিরেই বরিশাল অঞ্চল হয়ে উঠবে উন্নয়নের রোল মডেল হিসেবে। এরইমধ্যে, বরিশাল জেলা গণপূর্ত অধিদপ্তর উল্লেখ্যযোগ্য যে সব প্রকল্প শতভাগ সম্পন্ন করেছে তার মধ্যে রয়েছে। যথাক্রমে, স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের আওতাধীন জননিরাপত্তা বিভাগের উদ্যোগে নগরীর রূপাতলী এলাকায় প্রায় ১৬ কোটি ৩৪ লাখ টাকা ব্যয়ে নির্মাণ করা হয়েছে “বরিশাল মেট্রোপলিটন পুলিশ লাইন্স”,  নগরীর বান্দরোড পানি উন্নয়ন বোর্ড সংলগ্ন প্রায় ২৩ কোটি টাকা ব্যয়ে নির্মাণ করা হয়েছে বরিশাল মেট্রোপলিটন পুলিশ কার্যালয়, জেলার বাকেরগঞ্জ উপজেলার চামটা নিয়ামতি এলাকায় প্রায় ৩ কোটি ৯ লাখ ৫০ হাজার টাকা ব্যয়ে নির্মাণ করা হয়েছে নৌ-পুলিশ ফাঁড়ি, প্রায় ১ কোটি ৬৬ লাখ টাকা ব্যয়ে জেলা ও ব্যাটালিয়ন সদরের আনসার ও ভিডিপি’র ব্যারাক সমূহের ভৌত সুবিধাদি সম্প্রসারণ প্রকল্প, প্রায় ৩ কোটি ৬১ লাখ টাকা ব্যয়ে নির্মাণ করা হয়েছে জেলার মুলাদী উপজেলা ফায়ার সার্ভিস ও সিভিল ডিফেন্স স্টেটেশন। পাশাপাশি প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয়ের অধীনে ও জিওবি-এর অর্থায়নে প্রায় ১ কোটি ৪৯ লাখ টাকা ব্যয়ে নদী বন্দর ১ম শ্রেণী আবহাওয়া পর্যাবেক্ষনাগার শক্তিশালী করন শীর্ষক জেলার হিজলা থানাধীন আবহাওয়া অফিস ভবন নির্মাণ প্রকল্প সম্পন্ন করা হয়েছে। ভূমি মন্ত্রণাল য়ের অধীনে উপজেলা ও ইউনিয়ন ভূমি অফিস নির্মান শীর্ষক প্রকল্পের আওতায় জেলায় ৯টি অফিস ভবন নির্মাণ, কৃষি মন্ত্রণালয়ের অধীনে প্রায় ১ কোটি ২৪ লাখ টাকা ব্যয়ে জেলা কৃষি তথ্য সার্ভিস আধুনিকায়ন ও ডিজিটাল কৃষি তথ্য ও যোগাযোগ শক্তিশালী করণ প্রকল্প ও প্রায় ৬ কোটি ৩৮ লাখ টাকা ব্যয়ে উপজেলা পর্যায়ে প্রযুক্তি হস্তান্তরের জন্য কৃষক প্রশিক্ষন কেন্দ্র নির্মাণ করা হয়েছে। এছাড়াও সমাজকল্যাণ মন্ত্রনালয়ের অধীনে প্রায় ১৪ কোটি ৪০ লাখ টাকা ব্যয়ে নগরীর রূপাতলী এলাকায় নির্মাণ করা হয়েছে বরিশাল জেলা সমাজসেবা কমপ্লেক্স ও প্রায় ৫ কোটি ৬৬ লাখ টাকা ব্যয়ে “নিয়ন্ত্রিত প্রবেশ ও প্রযুক্তিগত মনিটরিং ব্যবস্থাপনার মাধ্যমে ৮৫টি সরকারী শিশু পরিবারের সুরক্ষা ও নিবিড় তত্ত্বাবধান” শীর্ষক প্রকল্প। এছাড়া রয়েছে, সংস্কৃতি বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের অধীনে প্রায় ২৯ কোটি ৭০ লাখ টাকা ব্যয়ে নির্মাণ করা হয়েছে বরিশাল বিভাগীয় ও জেলা শিল্পকলা একাডেমি ভবন।
অপরদিকে, সারাদেশে ন্যায় বরিশাল জেলায়ও সর্বমোট প্রায় ১১টি মডেল মসজিদ ও ইসলামিক সাংস্কৃতিক কেন্দ্র নির্মাণ প্রকল্পের কাজ চলমান রয়েছে। এরইমধ্যে ২টি মডেল মসজিদ ও ইসলামিক সাংস্কৃতিক কেন্দ্রের উদ্বোধন করা হয়েছে। বাকি ৯টি মডেল মসজিদ নির্মাণ কাজ ২০২৪ সালের জুনের মধ্যে শেষ হওয়ার কথা রয়েছে।
এ বিষয়ে বরিশাল জেলা গণপূর্ত বিভাগের নির্বাহী প্রকৌশলী মোঃ ফয়সাল আলম বলেন, বিগত বছরগুলোতে বেশ কিছু গুরুত্বপূর্ণ প্রকল্প জেলা গণপূর্ত বিভাগ বাস্তবায়ন করেছে। প্রাতিষ্ঠানিক দক্ষতা বৃদ্ধি, সম্পদের যথাযথ ব্যবহার নিশ্চিতকরনের মাধ্যমে “স্মার্ট বাংলাদেশ” গঠনের রূপকল্পে গণপূর্ত অধিদপ্তর বর্তমান সরকারের দিক-র্নিদেশনায় একাধিক কাজ করে যাচ্ছে।
তিনি বলেন, গণপূর্ত বিভাগ বাংলাদেশ নির্মাণ অঙ্গনে একটি পথিকৃত। স্মার্ট বাংলাদেশ রূপকল্প ২০৪১ কে সামনে রেখে সরকারের উন্নয়ন পরিকল্পনার আওতায় উন্নয়নশীল দেশের সকল চ্যালেঞ্জ মোকাবেলা পূর্বক যুগোপযোগী অবকাঠামো নির্মাণসহ প্রাতিষ্ঠানিক ও আবাসিক সুবিধাদি সুনিশ্চিত করাই এ প্রতিষ্ঠানটির মূল ভিশন।
এ প্রসঙ্গে বরিশাল জেলা প্রশাসক শহিদুল ইসলাম’র সাথে আলাপকালে তিনি বলেন, বর্তমান সরকারের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার অবদান ও উন্নয়নে বদলে যাচ্ছে বরিশাল অঞ্চল। তারই ঐকান্তিকতায় বরিশাল আজ উন্নয়নের মহাসড়কে।
তিনি আরো বলেন, তারই হাত ধরে অবহেলিত বরিশাল আজ দেশের অন্যতম নান্দনিক ও সমৃদ্ধ শহর হতে চলেছে। শুধু শহর নয়, বৃহত্তর বরিশাল অঞ্চলে চলছে উন্নয়নের মহাযজ্ঞ।