ঢাকা ০৫:৪৩ অপরাহ্ন, সোমবার, ১৫ এপ্রিল ২০২৪, ২ বৈশাখ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

পায়রা বিদ্যুৎকেন্দ্রের জন্য সাড়ে ৩৬ হাজার টন কয়লা নিয়ে ভিড়ল দ্বিতীয় জাহাজ

পায়রা তাপ বিদ্যুৎকেন্দ্রের জন্য ৩৬ হাজার ৫৭০ টন কয়লা নিয়ে এসেছে দ্বিতীয় জাহাজ। পানামার পতাকাবাহী এমভি পাভো ব্রেভ ইন্দোনেশিয়ার বালিক পানান বন্দর থেকে গতকাল শনিবার মধ্যরাতে পায়রা বন্দরে ভিড়ে।

বাংলাদেশ-চায়না পাওয়ার কোম্পানি লিমিটেডের (বিসিপিসিএল) নির্বাহী প্রকৌশলী জার্জিস তালুকদার বলেন, ‘আজ রোববার সকাল ১০টার দিকে জাহাজটি বন্দরের ইনার চ্যানেলে ভিড়লে লাইটারেজ পদ্ধতিতে কয়লা খালাস শুরু হয়।

২০ দিন উৎপাদন বন্ধ থাকার পর তাপবিদ্যুৎকেন্দ্র পুনরায় চালুর পর কয়লা নিয়ে আসা দ্বিতীয় জাহাজ এটি। এর আগে গত ২২ জুন এমভি অ্যাথেনা নামের একটি জাহাজ ৪১ হাজার ২০৭ টন কয়লা নিয়ে আসে।

জার্জিস তালুকদার আরও বলেন, ‘সকাল ১০টার পর থেকে ছোট জাহাজে কয়লা খালাস শুরু হয়েছে। এখান থেকে ৫ হাজার টন কয়লা খালাস করা হলে রাতেই তাপবিদ্যুৎকেন্দ্রের জেটিতে ভ্যাসেলটি নোঙর করবে।’

৫ জুন থেকে কয়লা সংকটের কারণে পায়রা তাপবিদ্যুৎকেন্দ্রটির উৎপাদন বন্ধ ছিল। এরপর কয়লা এলে ২৫ জুন বিদ্যুৎকেন্দ্রটি আবার উৎপাদনে যায়।

দুই জাহাজ মিলে এলে মোট ৭৭ হাজার ৭৭৭ টন কয়লা এল। পূর্ণ ক্ষমতায় চললে এই বিদ্যুৎকেন্দ্রের দুই ইউনিট চালাতে প্রতিদিন প্রায় ১৩ হাজার টন কয়লা প্রয়োজন হয়।

ট্যাগ :

দাকোপের বাজুয়ায় মাদক ব্যবসায়ীদের বিরুদ্ধে মানববন্ধন

পায়রা বিদ্যুৎকেন্দ্রের জন্য সাড়ে ৩৬ হাজার টন কয়লা নিয়ে ভিড়ল দ্বিতীয় জাহাজ

আপডেট সময় : ০৫:৫৫:১৬ অপরাহ্ন, রবিবার, ২ জুলাই ২০২৩

পায়রা তাপ বিদ্যুৎকেন্দ্রের জন্য ৩৬ হাজার ৫৭০ টন কয়লা নিয়ে এসেছে দ্বিতীয় জাহাজ। পানামার পতাকাবাহী এমভি পাভো ব্রেভ ইন্দোনেশিয়ার বালিক পানান বন্দর থেকে গতকাল শনিবার মধ্যরাতে পায়রা বন্দরে ভিড়ে।

বাংলাদেশ-চায়না পাওয়ার কোম্পানি লিমিটেডের (বিসিপিসিএল) নির্বাহী প্রকৌশলী জার্জিস তালুকদার বলেন, ‘আজ রোববার সকাল ১০টার দিকে জাহাজটি বন্দরের ইনার চ্যানেলে ভিড়লে লাইটারেজ পদ্ধতিতে কয়লা খালাস শুরু হয়।

২০ দিন উৎপাদন বন্ধ থাকার পর তাপবিদ্যুৎকেন্দ্র পুনরায় চালুর পর কয়লা নিয়ে আসা দ্বিতীয় জাহাজ এটি। এর আগে গত ২২ জুন এমভি অ্যাথেনা নামের একটি জাহাজ ৪১ হাজার ২০৭ টন কয়লা নিয়ে আসে।

জার্জিস তালুকদার আরও বলেন, ‘সকাল ১০টার পর থেকে ছোট জাহাজে কয়লা খালাস শুরু হয়েছে। এখান থেকে ৫ হাজার টন কয়লা খালাস করা হলে রাতেই তাপবিদ্যুৎকেন্দ্রের জেটিতে ভ্যাসেলটি নোঙর করবে।’

৫ জুন থেকে কয়লা সংকটের কারণে পায়রা তাপবিদ্যুৎকেন্দ্রটির উৎপাদন বন্ধ ছিল। এরপর কয়লা এলে ২৫ জুন বিদ্যুৎকেন্দ্রটি আবার উৎপাদনে যায়।

দুই জাহাজ মিলে এলে মোট ৭৭ হাজার ৭৭৭ টন কয়লা এল। পূর্ণ ক্ষমতায় চললে এই বিদ্যুৎকেন্দ্রের দুই ইউনিট চালাতে প্রতিদিন প্রায় ১৩ হাজার টন কয়লা প্রয়োজন হয়।