ঢাকা ০৪:১৪ অপরাহ্ন, শুক্রবার, ১৯ এপ্রিল ২০২৪, ৬ বৈশাখ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

ঝালকাঠির গামছা শিল্পে আধুনিকতার ছোঁয়া

  • স্টাফ রিপোর্টার
  • আপডেট সময় : ১২:৩৫:৩৩ অপরাহ্ন, শনিবার, ৯ সেপ্টেম্বর ২০২৩
  • ১০৯ খবরটি দেখা হয়েছে

আধুনিকতার ছোঁয়া লেগেছে ঝালকাঠির গামছা শিল্পে। চলি­শ বছরের পুরানো ঐতিহ্যবাহী গামছা হস্তচালিত তাঁতের পরিবর্তে এখন হচ্ছে বিদ্যুৎচালিত তাঁতে। আর গামছা শিল্পে এই আধুনিকতা এনেছে গনি টেক্সটাইল মিল। গত ছয় মাস ধরে আধুনিক মেশিনে এখানে গামছা তৈরি হচ্ছে। তবে, এ শিল্পকে আরো প্রসারিত করতে সরকারি সহায়তা চাচ্ছেন উদ্যোক্তারা। শিল্প টিকিয়ে রাখতে কারিগরদের সার্বিক সহযোগিতার আশ্বাস দিয়েছে বিসিক।

সারাদেশে যেসব পণ্যে ঝালকাঠির সুনাম রয়েছে তার মধ্যে গামছা অন্যতম। শুধু দেশে নয় দেশের বাইরেও তাঁতের গামছার কদর আছে। দীর্ঘ চলি­শ বছর আগে শুরু হওয়া এই শিল্প এখনও টিকে আছে মাথা উঁচু করে। তবে গামছা বানাতে আধুনিকতার ছোঁয়া এনেছে ঝালকাঠির ঐতিহ্যবাহী গনি টেক্সটাইল মিল। গত ছয় মাস ধরে আধুনিক মেশিনে প্রস্তুত হচ্ছে গনি মিয়ার গামছা। কারিগররা কারাখানায় বসেই নকশা করছে বাহারী রংয়ের গামছার।

কারিগররা জানালেন, নারায়ণগঞ্জ থেকে গামছা তৈরীর কাঁচামাল নিয়ে নিজস্ব ডিজাইনাররা কারখানায় বসেই ডিজাইন করছে বাহারী রংয়ের গামছার। প্রতিদিন কারখানায় ২৫০টি গামছা তৈরি হচ্ছে। যা স্থানীয় চাহিদা মিটিয়ে চট্টগ্রাম, নরসিংদি, চাঁদপুরসহ দেশের বিভিন্ন স্থানে নিয়ে বিক্রি করছে পাইকাররা। তাই উৎপাদন বাড়াতে মেশিন ও কারখানার সংখ্যা বাড়ানোর পাশাপাশি সরকারী সহায়তা প্রয়োজন বলে জানিয়েছেন কারিগররা।

গামছা শিল্পের প্রসারে কারিগরদের সহযোগিতার আশ্বাস দিলেন ঝালকাঠি জেলার বিসিকের উপ-ব্যবস্থাপক এইচ এম ফাইজুর রহমান। তাঁতীরা পাইকারি বাজারে প্রতিটি গামছা আড়াইশ’ থেকে ৩শ’ টাকায় পাইকারি বিক্রি করে। যা বাজারে ৩শ’ ৬৫ টাকায় বিক্রি হয়।

দাকোপের বাজুয়ায় মাদক ব্যবসায়ীদের বিরুদ্ধে মানববন্ধন

ঝালকাঠির গামছা শিল্পে আধুনিকতার ছোঁয়া

আপডেট সময় : ১২:৩৫:৩৩ অপরাহ্ন, শনিবার, ৯ সেপ্টেম্বর ২০২৩

আধুনিকতার ছোঁয়া লেগেছে ঝালকাঠির গামছা শিল্পে। চলি­শ বছরের পুরানো ঐতিহ্যবাহী গামছা হস্তচালিত তাঁতের পরিবর্তে এখন হচ্ছে বিদ্যুৎচালিত তাঁতে। আর গামছা শিল্পে এই আধুনিকতা এনেছে গনি টেক্সটাইল মিল। গত ছয় মাস ধরে আধুনিক মেশিনে এখানে গামছা তৈরি হচ্ছে। তবে, এ শিল্পকে আরো প্রসারিত করতে সরকারি সহায়তা চাচ্ছেন উদ্যোক্তারা। শিল্প টিকিয়ে রাখতে কারিগরদের সার্বিক সহযোগিতার আশ্বাস দিয়েছে বিসিক।

সারাদেশে যেসব পণ্যে ঝালকাঠির সুনাম রয়েছে তার মধ্যে গামছা অন্যতম। শুধু দেশে নয় দেশের বাইরেও তাঁতের গামছার কদর আছে। দীর্ঘ চলি­শ বছর আগে শুরু হওয়া এই শিল্প এখনও টিকে আছে মাথা উঁচু করে। তবে গামছা বানাতে আধুনিকতার ছোঁয়া এনেছে ঝালকাঠির ঐতিহ্যবাহী গনি টেক্সটাইল মিল। গত ছয় মাস ধরে আধুনিক মেশিনে প্রস্তুত হচ্ছে গনি মিয়ার গামছা। কারিগররা কারাখানায় বসেই নকশা করছে বাহারী রংয়ের গামছার।

কারিগররা জানালেন, নারায়ণগঞ্জ থেকে গামছা তৈরীর কাঁচামাল নিয়ে নিজস্ব ডিজাইনাররা কারখানায় বসেই ডিজাইন করছে বাহারী রংয়ের গামছার। প্রতিদিন কারখানায় ২৫০টি গামছা তৈরি হচ্ছে। যা স্থানীয় চাহিদা মিটিয়ে চট্টগ্রাম, নরসিংদি, চাঁদপুরসহ দেশের বিভিন্ন স্থানে নিয়ে বিক্রি করছে পাইকাররা। তাই উৎপাদন বাড়াতে মেশিন ও কারখানার সংখ্যা বাড়ানোর পাশাপাশি সরকারী সহায়তা প্রয়োজন বলে জানিয়েছেন কারিগররা।

গামছা শিল্পের প্রসারে কারিগরদের সহযোগিতার আশ্বাস দিলেন ঝালকাঠি জেলার বিসিকের উপ-ব্যবস্থাপক এইচ এম ফাইজুর রহমান। তাঁতীরা পাইকারি বাজারে প্রতিটি গামছা আড়াইশ’ থেকে ৩শ’ টাকায় পাইকারি বিক্রি করে। যা বাজারে ৩শ’ ৬৫ টাকায় বিক্রি হয়।