ঢাকা ০৯:১৭ অপরাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ২০ জুন ২০২৪, ৬ আষাঢ় ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

অতিবর্ষণে চট্টগ্রামে পাহাড় ধসে বাবা-মেয়ের মৃত্যু

  • ডেস্ক রিপোর্ট
  • আপডেট সময় : ০৬:০১:০২ অপরাহ্ন, রবিবার, ২৭ অগাস্ট ২০২৩
  • ১১৮ খবরটি দেখা হয়েছে

অতি বর্ষণে চট্টগ্রাম নগরের পাঁচলাইশ থানা এলাকায় পাহাড় ধসে বাবা ও সাত মাস বয়সি মেয়ের মৃত্যু হয়েছে। রোববার (২৭ আগস্ট) সকালে চট্টগ্রাম নগরীর ষোলশহর  আই ডব্লিউ কলোনিতে এ দুর্ঘটনা ঘটে। মৃতরা হলো- মো. সোহেল (৩৩) ও তার মেয়ে বিবি জান্নাত। বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ (চমেক) হাসপাতাল পুলিশ ফাঁড়ির উপ-পরিদর্শক (এসআই) নুরুল আলম আশেক। তিনি বলেন, সকাল সাড়ে ৭টায় পাহাড় ধসে গুরুতর আহত দুজনকে হাসপাতালে আনা হলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাদের মৃত ঘোষণা করেন। এদিকে চট্টগ্রাম ফায়ার সার্ভিস বিভাগের উপ-পরিচালক আবদুল্লাহ হারুন পাশা জানান, রোববার সকাল ৭টা ১০ মিনিটের দিকে ফায়ার সার্ভিসের কাছে পাহাড় ধসের খবর আসে, সেখানে পাহাড়ের নিচে কাঁচা ঘর বানিয়ে সোহেল স্ত্রী-সন্তানদের নিয়ে বসবাস করতেন। রাতভর অতি বৃষ্টির পর সকালের দিকে আই ডব্লিউ কলোনির প্রায় ৫০ ফুট খাড়া পাহাড় থেকে মাটির খন্ড ওই ঘরের ওপর পড়ে। এতে চারজন মাটিতে চাপা পড়ে। স্থানীয় লোকজনের সহযোগিতায় ফায়ার সার্ভিস কর্মীরা তাদের উদ্ধার করে চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে যায়। এদের মধ্যে চিকিৎসকরা দুই জনকে মৃত ঘোষণা করেন।
পতেঙ্গা আবহাওয়া অফিস জানিয়েছে, শনিবার রাত ১২টা থেকে রোববার সকাল ৯টা পর্যন্ত আট ঘণ্টায় ৭৬.৪ মিলিমিটার বৃষ্টিপাত রেকর্ড করা হয়েছে। চলতি মাসের শুরুতেও টানা বর্ষণে চট্টগ্রামে বন্যা পরিস্থিতির সৃষ্টি হয়। এতে প্রাণহানির পাশাপাশি দুর্ভোগে পড়েছিল লাখো মানুষ। মৌসুমি বায়ু সক্রিয় থাকায় তিন সপ্তাহের ব্যবধানে আবারও বৃষ্টিপাত শুরু হয়েছে বলে জানিয়েছেন আবহাওয়াবিদ মাহমুদুল আলম।

খুলনার দাকোপে ভূমিসেবা সপ্তাহ উদযাপন হয়েছে

অতিবর্ষণে চট্টগ্রামে পাহাড় ধসে বাবা-মেয়ের মৃত্যু

আপডেট সময় : ০৬:০১:০২ অপরাহ্ন, রবিবার, ২৭ অগাস্ট ২০২৩

অতি বর্ষণে চট্টগ্রাম নগরের পাঁচলাইশ থানা এলাকায় পাহাড় ধসে বাবা ও সাত মাস বয়সি মেয়ের মৃত্যু হয়েছে। রোববার (২৭ আগস্ট) সকালে চট্টগ্রাম নগরীর ষোলশহর  আই ডব্লিউ কলোনিতে এ দুর্ঘটনা ঘটে। মৃতরা হলো- মো. সোহেল (৩৩) ও তার মেয়ে বিবি জান্নাত। বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ (চমেক) হাসপাতাল পুলিশ ফাঁড়ির উপ-পরিদর্শক (এসআই) নুরুল আলম আশেক। তিনি বলেন, সকাল সাড়ে ৭টায় পাহাড় ধসে গুরুতর আহত দুজনকে হাসপাতালে আনা হলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাদের মৃত ঘোষণা করেন। এদিকে চট্টগ্রাম ফায়ার সার্ভিস বিভাগের উপ-পরিচালক আবদুল্লাহ হারুন পাশা জানান, রোববার সকাল ৭টা ১০ মিনিটের দিকে ফায়ার সার্ভিসের কাছে পাহাড় ধসের খবর আসে, সেখানে পাহাড়ের নিচে কাঁচা ঘর বানিয়ে সোহেল স্ত্রী-সন্তানদের নিয়ে বসবাস করতেন। রাতভর অতি বৃষ্টির পর সকালের দিকে আই ডব্লিউ কলোনির প্রায় ৫০ ফুট খাড়া পাহাড় থেকে মাটির খন্ড ওই ঘরের ওপর পড়ে। এতে চারজন মাটিতে চাপা পড়ে। স্থানীয় লোকজনের সহযোগিতায় ফায়ার সার্ভিস কর্মীরা তাদের উদ্ধার করে চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে যায়। এদের মধ্যে চিকিৎসকরা দুই জনকে মৃত ঘোষণা করেন।
পতেঙ্গা আবহাওয়া অফিস জানিয়েছে, শনিবার রাত ১২টা থেকে রোববার সকাল ৯টা পর্যন্ত আট ঘণ্টায় ৭৬.৪ মিলিমিটার বৃষ্টিপাত রেকর্ড করা হয়েছে। চলতি মাসের শুরুতেও টানা বর্ষণে চট্টগ্রামে বন্যা পরিস্থিতির সৃষ্টি হয়। এতে প্রাণহানির পাশাপাশি দুর্ভোগে পড়েছিল লাখো মানুষ। মৌসুমি বায়ু সক্রিয় থাকায় তিন সপ্তাহের ব্যবধানে আবারও বৃষ্টিপাত শুরু হয়েছে বলে জানিয়েছেন আবহাওয়াবিদ মাহমুদুল আলম।